হোম বই নিয়ে বাংলা দেশ ও অন্যান্য গল্প

বাংলা দেশ ও অন্যান্য গল্প

বাংলা দেশ ও অন্যান্য গল্প
520
0

কথাশিল্পী মশিউল আলমের বাংলা দেশ ও অন্যান্য গল্প বইটি যখন পড়া শেষ করছি, তখনই ফেসবুকের স্ক্রলে ভেসে ওঠে শ্রীলংকান ওয়েব ম্যাগাজিন ‘হিমাল’ আয়োজিত ‘ছোটগল্প প্রতিযোগিতা ২০১৯’-এর সংক্ষিপ্ত তালিকায় স্থান পেয়েছে তার ‘দুধ’ শীর্ষক গল্পটি, ‘মিল্ক’ শিরোনামে শবনম নাদিয়ার অনুবাদে। আমার নিজের খুব পছন্দের গল্প এটি। এই গল্পের পাশাপাশি আমার সীমিত পাঠ থেকে লেখকের ‘বিরজুকে নিয়ে গল্প লেখার কৈফিয়ত’, ‘জামিলা’, ‘পাকিস্তান’,  ‘রূপালী রুই’, ‘মাংসের কারবার’, ‘আবেদালির মৃত্যুর পর’, ক্ষুধার্ত আকালু, ‘কেউ কাউকে দেখতে পাচ্ছে না’ গল্পগুলোর কথা স্মরণ করতে পারি।


গল্পগুলোকে সমকালীন অন্যান্য লেখকের গল্প থেকে সহজেই আলাদা করা যায়।


আলোচ্য বাংলা দেশ ও অন্যান্য গল্প গল্পগ্রন্থে ৮টি গল্প আছে। গ্রন্থটি ২০১৯ সালের অমর একুশে গ্রন্থমেলায় মাওলা ব্রাদার্স থেকে প্রকাশিত। সামগ্রিকভাবে এই সংকলনটি মশিউল আলমের অন্যান্য গল্পগ্রন্থের চেয়ে কিছুটা দুর্বল বলে মনে হয়েছে। অন্তত লেখকের উল্লিখিত গল্পের সঙ্গে উচ্চারিত হতে পারে এরকম গল্প আমি এ গ্রন্থে পেয়েছি কিনা ভেবে বলতে হবে। ‘বাংলা দেশ’ ও ‘রূপনগর থেকে দূরে’ গল্পদুটিতে আমি লেখককে পেয়েছি বটে, কিন্তু অনেকদিন মনে থাকবে এমন নয়।

মশিউল আলমের গল্পের কিছু নিজস্বতা আছে, যে কারণে তার গল্পগুলোকে সমকালীন অন্যান্য লেখকের গল্প থেকে সহজেই আলাদা করা যায়। সময়ের একধরনের দ্বান্দ্বিক উপস্থিতি ঘটে তার লেখায়। গল্পকার মশিউল আলম ভীষণভাবে সমকালীন। তার অধিকাংশ গল্পের বিষয় পরিবর্তিত সময়, স্বকালে ঘটে যাওয়া নানা রাজনৈতিক-সামাজিক ঘটনা। আমরা জানি পেশায় তিনি সাংবাদিক, সুতরাং ঘটনার বহির্বয়ান ও অন্তর্বয়ান কোনোটাই তার অজানা নয়। তার গল্পে এ দুটি বয়ানই থাকে। এটা গেল গল্পের বিষয়বস্তু বা বক্তব্যের দিক। নির্মিতির দিক থেকে তিনি নিরন্তর না হলেও অনেকটাই নিরীক্ষাপ্রবণ। তার কোনো কোনো গল্পে অতিবাস্তবতার ভেতরও চমৎকারভাবে জাদুবাস্তবতার মিশেল ঘটে। কখনো আবার জাদুবাস্তবতার চেয়ে পরাবাস্তবতার বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে ওঠে। শুরু থেকে এক ধরনের আকর্ষণীয় কাঠামোর ভেতর দিয়ে গল্প এগিয়ে যায়। এক্ষেত্রে মেদহীন স্বতঃস্ফূর্ত গদ্য পাঠকের জন্য গল্পটিকে আরো উপভোগ্য করে তোলে। চরিত্রের অতি বয়ান বা পরিস্থিতির অপ্রয়োজনীয় কাব্যিক বয়ানের দিকে তিনি ঝোঁকেন না। এই পরিমিতিবোধ তার গদ্যভাষার প্রধান শক্তি বলে আমার মনে হয়।

আলোচ্য গল্পগ্রন্থ সম্পর্কে দুয়েকটি কথা বলার আগে মশিউল আলমের গল্পের সাধারণ প্রকৃতি নিয়ে আমার নিজস্ব মত তুলে ধরার মধ্য দিয়ে আমি এটুকু বলতে চাচ্ছি, বাংলা দেশ ও অন্যান্য গল্প বইতে মনে রাখার মতো মশিউল আলমকে না পেলেও তার যে গল্প বলার স্বকীয় স্বর সেটি অনুপুস্থিত নয়। অর্থাৎ গল্পগুলো পাঠক হিসেবে আমার কাছে অবশ্যপাঠ্য মনে না হলেও সুখপাঠ্য বলে মনে হয়েছে।


ক্যাপিটালিজম কোনো ইজম না, স্পন্টেনিয়াসলি গড়ে ওঠা একটা সিস্টেম।


গ্রন্থের সূচনা গল্পের নাম ‘প্রতিদিন মনে পড়বে’। গল্পটি দ্বিজেন শর্মার স্মৃতিবিজড়িত। স্বপ্নবাস্তবতার মতো গল্পের কথক মশিউল আলম মস্কোর একটি হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটের ভেতর ঢুকে পৌঁছে গেলেন ঢাকার রমনা পার্কে। সেখানে অপেক্ষা করছেন আইসিইউতে ভর্তি থাকা দ্বিজেন শর্মা। দুজনে একসঙ্গে হাঁটেন। আমরা জানি, মশিউল আলম এবং দ্বিজেন শর্মা অনেকটা বছর সোভিয়েত ইউনিয়নে ছিলেন। তাদের সুসম্পর্কের বিষয়টিও স্মরণীয়। এখানে দুজনে বিপ্লব, ক্যাপিটালিজম, সমাজতন্ত্র, সোভিয়েত ইউনিয়নের ভাঙন ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কথা বলছেন। গল্পে প্যাঁচার মুখে কণ্ঠস্বর তুলে দিয়েছেন কথক। প্যাঁচা পণ্ডিতের মতো বলে, ‘ক্যাপিটালিজম কোনো ইজম না, স্পন্টেনিয়াসলি গড়ে ওঠা একটা সিস্টেম।’ রমনার পথ তুষারে ঢেকে গিয়ে মস্কোর রাস্তা হয়ে ওঠে। ওদের সঙ্গে সাক্ষাৎ ঘটে লেলিনের, সঙ্গে ভোলান্দ। দ্বিজেন শর্মার মৃত্যু দিয়ে গল্পটি শেষ হয়। গল্পটিতে স্থান বা সময়হীনতার ব্যাপার আছে। পাঠকের বেশ মনোযোগ দাবি করে।

‘বাংলা দেশ’ গল্পে দেশভাগের ফলে দুই বাংলার মানুষের মনের মধ্যে যে ক্ষত, বিশেষ করে হিন্দু-মুসলমানের মধ্যে যে সন্দেহ ও দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে সেটি উঠে এসেছে। সাতচল্লিশের পর কলকাতায় চলে গেছেন নবীনচন্দ্র চক্রবর্তী, নাতি অভিজিৎকে সঙ্গে করে এতটা বছর পর বাংলাদেশে এসেছেন। নবীনচন্দ্র বাংলাদেশকে স্বদেশ এবং ভারতকে বিদেশ বললে এদিক থেকে আপত্তি তোলে রেজাউল। ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর তিনি এদেশে থাকতে পারবেন না বলে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়। এভাবেই অপ্রয়োজনীয় বাদানুবাদের ভেতর দিয়ে গল্প এগিয়ে যায়। গল্পটি বক্তব্যপ্রধান। ‍শুরুটা আগ্রহউদ্দীপক হলেও শেষের দিকে কিছুটা ঝুলে গেছে। গল্পের ভেতর থেকে বাস্তবতা উঠিয়ে আনা, আর চরিত্রের উপর বাস্তবতা আরোপ করা—দুটো আলাদা জিনিস। কোথাও কোথাও লেখক আরোপ করছেন বলে মনে হয়েছে।

‘এটা মনিকা’ গল্পে নগরজীবনে পিতামাতার দাম্পত্যকলহ—পরকীয়ার ফলে উঠতি বয়সী সন্তানের মনে যে প্রভাব পড়ে তার কিছুটা উঠে এসেছে। ‘রমজানের ১০ তারিখ’ প্রেমের গল্প। অতিপ্রাকৃত বা অব্যাখ্যাত বিষয় এ গল্পে আছে। গল্পে কৈফিয়ত অংশটি অতিরিক্ত মনে হয়েছে। নাস্তিক আবু রায়হানকে ওর সাবেক প্রেমিকা দশ রমজানের শেষরাতে ফোন করে সেহরি খেয়ে রোজা রাখতে বলে ফোনটা কেটে দেয়। আবু রায়হান স্ত্রীকে না জানিয়ে সেহরি খেয়ে রোজা থাকে। এরপর থেকে প্রতিবছর সে রোজা করে আর প্রতি বছর দশম রোজায় একটা ফোন কলের জন্য অপেক্ষা করে। জানা যায়, যে মেয়েটি পাঁচ বছর আগে ফোন করেছিল সে তারও ছয় বছর আগে মারা গেছে। এরপর আবু রায়হান রোজা করে এবং মেয়েটির ফোন কলের জন্য অপেক্ষা করে। আবু রায়হানকে শুরুতে নাস্তিক হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া এবং একটি ফোনকলের ভিত্তিতে তাকে নিয়োমিত রোজাদার, কিন্তু নামাজি-না করে তোলার ভেতর দিয়ে লেখক কী বোঝাতে চেয়েছেন তা আমার কাছে পরিষ্কার না। হয়তো পুরনো প্রেমিকার প্রতি রায়হানের নিবেদন হয়ে থাকবে।


 নতুন করে এ ধরনের গল্প লেখার কোনো কারণ আমি খুঁজে পাই নি।


এছাড়াও অন্যান্য গল্পের মধ্যে ‘রূপনগর থেকে দূরে’ গল্পটির কথা বলতে চাই। গল্পটি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে একটি গ্রামের কতগুলো মানুষের কথা বলা হয়েছে যারা পাকিস্তানপন্থী। একসময় তারা এই গ্রামের মানুষ ছিল না, এটি ছিল হিন্দুদের গ্রাম, নাম ছিল বিষ্ণুপুর, দেশভাগের পর ওপার থেকে আসা মুসলমানদের কারণে গ্রামটি নাম বদলে হয়েছে রসূলপুর। গ্রামের মানুষের ধারণা তারা যেহেতু নৌকায় ভোট দেয় নি এবং তারা পাকিস্তানের পক্ষে, তাই তাদের কোনো ক্ষতি করবে না পাকিস্তানি মিলিটারি। গ্রামের একমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া আশরাফ এবং তার পরিবারের করুণ পরিণতি এবং গ্রামটির জেগে ওঠার মধ্য দিয়ে গল্পটি শেষ হয়। ছোটগল্পের টান ও টনটনে ভাব দুটোই এই গল্পে অনুপস্থিত। ছোটগল্পের জন্য অপ্রয়োজনীয় ডিটেলিং এবং প্রেডিকটেবল কাহিনির কারণে গল্পটি ধরে রাখতে পারে না। আমি দু’বসাতে শেষ করেছি। মুক্তিযুদ্ধের এমন চেনা পরিস্থিতির ফ্লাট বয়ান আমাদের সাহিত্যে কম হয় নি। নতুন করে এ ধরনের গল্প লেখার কোনো কারণ আমি খুঁজে পাই নি।

সবমিলে মশিউল আলমের বাংলা দেশ ও অন্যান্য গল্প গ্রন্থে আমাদের যাপিত সময়ের দ্বন্দ্ব-সংঘাত উঠে এলেও, বক্তব্য কিংবা শিল্পের বিচারে আমি যাব না, পাঠতৃপ্তির জায়গা থেকে খুব উচ্ছ্বাস প্রকাশ করার মতো মনে হয় নি। বিশেষ করে লেখকের নির্বাচিত গল্প [বাতিঘর থেকে প্রকাশিত] গ্রন্থটি মনে রাখার মতো কিছু গল্পপড়ার মাঝে আলোচ্য বইটি পাঠ করার সময় আমার এমনটিই মনে হলো।

মোজাফ্‌ফর হোসেন

জন্ম ২১ নভেম্বর, ১৯৮৬। ইংরেজি ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতকোত্তর। কর্মকর্তা, বাংলা একাডেমি।

প্রকাশিত বই :
গল্প—
খুন হয়ে যাচ্ছে সব সাদেক (গল্পগ্রন্থ, অন্যপ্রকাশ)
দ্বিধা [অন্বেষা, ২০১১]
আদিম বুদবুদ অথবা কাঁচামাটির বিগ্রহ [রাত্রি, ২০১২]
অতীত একটা ভিনদেশ [বেহুলা বাংলা, ২০১৬]
পরাধীন দেশের স্বাধীন মানুষেরা [অগ্রদূত, ২০১৯]

প্রবন্ধ—
বিশ্বগল্পের বহুমাত্রিক পাঠ [অনুপ্রাণন, ২০১৩]
আলোচনা-সমালোচনা [অনুপ্রাণন, ২০১৪]
বাংলা সাহিত্যের নানাদিক [গ্রন্থকুটির প্রকাশনী]
বিশ্বসাহিত্যের কথা [বেঙ্গল পাবলিকেশন]

সাক্ষাৎকার—
প্রশ্নের বিপরীতে [অনিন্দ্য প্রকাশ]

সম্পাদনা—
বিশ্বসাহিত্যের নির্বাচিত প্রবন্ধ [দেশ, ২০১৭]
নির্বাচিত হেমিংওয়ে [আলোঘর প্রকাশিত]
কল্পে-গল্পে ইলিশ [গল্পসংকলন, সহ-সম্পাদনা, মূর্ধন্য প্রকাশনী]

প্রকাশিতব্য—
দক্ষিণ এশিয়ার ডায়াসপোরা সাহিত্য [গবেষণা, পাঞ্জেরী প্রকাশনী]
পাঠে-বিশ্লেষণে বিশ্বগল্প [ছোটগল্পের তাত্ত্বিক গ্রন্থ, পাঞ্জেরী প্রকাশনী]

ই-মেইল : mjafor@gmail.com