হোম কবিতা ভাসানের গান

ভাসানের গান

ভাসানের গান
350
0

নিজেকে আলগা করো, একটু তফাতে যাও; আগুন জ্বলছে?
জ্বলুক না! তোমারও গন্তব্য জেনো আগুনে মাটিতে
একবার কেবল তাকাও ধোঁয়ার কুণ্ডের দিকে
ছোটকালে যেভাবে তাকাতে অপাপনয়নে,
কোথাও পড়েছে বোমা? না! এ তোমার চোখের-পানি-আনা ছল
গাছের নিকটে যাও, দাও হাত, কেমন একলা
বিজনে চলেছে একা হৃদয়স্পন্দন
তোমার প্রাণের বন্ধুর মতন
শিরা-উপশিরা বেয়ে রক্ত ছুটে চলে, ফল যদি হয়,
তারই তো ভেতরে ঢোকে সব শাঁস জীবনের
জলে হাত দাও, ঠান্ডা? হোক
গরম করতে নেই, তুমি নিজে হয়ে যাও শীতল-অতল
তোমাকে যখন ছোঁবে, কেউ বলে যেন, বরফের দেশ থেকে এলে?
বলুক না, তোমার ভেতরে জেনো তখনই ভাঙছে
বরফের চাক, তুমি উষ্ণ হতে শুরু করো
ভালোবাসা সেই উষ্ণতাকে নিয়ে বেঁচে থাকে
তার প্রতি-পলে হিমবাহনের ইতিহাস
কাঁটার উপর দিয়ে পা ফেলে পা ফেলে এগিয়ে গেলেই
সাজানো বাগান পাবে, আগেই ফিরেছ কেন এমন সুগন্ধ থেকে
পাপড়ির কথা এলোমেলো রঙে গন্ধে ছড়িয়ে দিয়েছে
বিকাশের গান, শোনো, তোমাকে ছড়াও
বহুদিন আতরকৌটায় বন্দি করে রেখেছ বাসনা
বেণীটিও খুলতে পারে নি আষাঢ়ে হাওনে মেঘমালা
চুলে চুলে পাল তুলে উড়ে চলে দেশ-দেশান্তর

কতদিন তাকিয়ে থেকেছ পায়ে গজানো শেকড়
টানে, উৎরোলে, স্থবির বেদনা, পাছে নড়েচড়ে এই ভয়ে,
সীমান্তের ধারে যেয়ো, কখনো পলায়নের দিন দেখো
চৌধারে কেমন কাঁটাতার বেড়িয়ে রেখেছে সীমা,
আহা রে ভূগোল, কী বা ধরে রাখে,
দেহ যায় দেহের নিকট, যেতে চায়, পরশিতে আকর্ষিতে
বেঁধে ফেলতে আপন জঙ্ঘায়, দেহ বাঁধো?
তারও গভীরে যে নৈরাকার পাখি শিস দেয়,
জানো তুমি ঠারে-ঠার সীমান্ত ভাঙার শিসগান

গানে যাও ডুবে একদিন প্রতিটি রাগের ভাঁজ খুলে
খুঁজে নাও প্রতীকী ভাষার ইতিহাস, হৃদয়ের ছন্নছাড়া প্রকাশমাতম,
রাগিণীর শ্রুতি স্রোতে ভেসে চলা ঐকতান ঐক্যটান
জড়াজড়ি দূর-অনুভব, কাছে ডাকা ভালোবাসা, রক্তমোহ,
নির্বচন বাতাসের ভেতরে প্রবেশ করো শরীর ভাসাও,
ভার নাই ভর নাই, নিমেষে ভোলাও ক্ষত

যতখানি পড়েছিল সময়ের চাবুকে, ঘা, শুকাও গোপনে
গোপন কথাটি আজ গোপনে থাকুক
ক্ষতজন্মা-জীবনের অলিগলি ঘুরে ফেরা প্রাণ
রক্তফোঁটা ছেঁড়াবস্ত্র ঝুলে পড়া চামড়া-আস্তিন,
সকলি জুড়াবে, ওড়াবে হাওয়ায় ঝিরিঝিরি বাতাস, শুনবে
তোমার কথাটি, দীর্ঘশ্বাস হবে তার প্রান্তরের উড্ডয়নসখা
তোমারই বেদনাসাম্রাজ্যের মণিকোঠা থেকে
খুঁজে পাওয়া শ্বাসের সুন্দরী, যাও, বায়ুদূতী হও…


ঈদসংখ্যা ২০১৯

শুভাশিস সিনহা

জন্ম ২৯ জানুয়ারি ১৯৭৮, মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার ঘোড়ামারা গ্রামে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর। বর্তমানে মণিপুরি ললিতকলা একাডেমিতে নাট্যপ্রশিক্ষক।

প্রকাশিত বই—

ডেকেছিলাম জল (কবিতা)
অক্ষর নতুন করে চিনি (কবিতা)
বেলা দ্বিপ্রহর (কবিতা)
হওয়া না-হওয়ার গান (কবিতা)
দ্বিমনদিশা (কবিতা)
আবছায়াদের রূপকথা (গল্প)
প্রতিরূপকথা (নাটক)
কুলিমানুর ঘুম (উপন্যাস)
ইঞ্জিন (উপন্যাস)
ভাষা, কবিতা ও রবীন্দ্রনাথ (প্রবন্ধ)
রবীন্দ্রনাথ : গ্রামের ছবি (গবেষণা)
মণিপুরি সাহিত্য সংগ্রহ ২খণ্ড (অনুবাদ ও সম্পাদনা)

ই-মেইল : shuvashissinha@yahoo.com