হোম কবিতা সমিধ বরণ জানার কবিতা

সমিধ বরণ জানার কবিতা

সমিধ বরণ জানার কবিতা
342
0

চক্রপাণি

এক

জেগে ওঠো ধূম
হাড়ের ভিতর দিয়ে ফুৎকার দাও,
এই যে শিরীষ কাঠ, জীর্ণ আসবাব
একদিন হরিদ্রাভ গৃহ ছিল তারো
লোহার ফটক জুড়ে অঘোর শৃঙ্খল
আজ শুধু খোলা পড়ে থাকে

জড়িয়ে রয়েছ ধূম, আদি রন্ধ্রপথে
পাকে পাকে বেড়ে ওঠে পাপ,
পাষাণে ঝংকার দেয় কটিমুক্ত অসি

 

দুই

আজ সেই গল্পগুলি বলো,
খাঁচার ভিতরে তাঁর শ্বেত সঞ্চরণ
আতপ দেহযন্ত্র হে , রমণীর মতো
গুণ্ঠনের ষড়রিপু ভারে
শুধু মুক্ত কেশ
ডঙ্কাবাহী মেঘেদের মতো দেখা যায়,
আরো দাও বিষ
যতখানি ভোগ আছে মোর—
পাতার বাইল জুড়ে শত ছিদ্রপথে
মস্ত এক মাছরাঙা বসে থাকে ডালে

 

তিন

ডাহুকের মত যেন উড়ে আসে রোদ
ফরফর ডানা খুলে রাখি,
জটাজালে ভুসাকালি মেখে—
নীলাম্বর তুমিও কি জটাকেশ মুক্ত করে নিলে!
জাফরি উঠোনে বসে একা মাছরাঙা
পুচ্ছের ঝাপটে তার তরঙ্গ জাগালো…
এইবার মেঘমন্দ্র নাদ
জলভার গুরুগুরু ধ্বনি
আমার আকুল বুকে কাঁপন ধরাও

 

চার

যতখানি ফেরা হলে কলঙ্কিত হই,
যতটুকু দিশা জাগে উত্তরের পথে
ততটুকু আছে জেনো আমার সম্বল
সিথানে মাটির ভাঁড়, কুণ্ডলিত শতদল, মূল
ও কার মৃত্তিকা কণা, তিল ও তণ্ডুল
শাদা থান বালিকার বেশ,
এটুকু আস্বাদে পাই, তিল ও তণ্ডুল
চোখের তারার পাশে জলের সিঞ্চনে
শস্যক্ষেতে বহুদিন পলি জমে আছে,
এবার সাজাও সখী চণ্ডালের বেশ
হাতে দাও আধপোড়া বাঁশের লাঠিটি

 

পাঁচ

কিছু কি চেয়েছি বেশি, বলো,
বেড়া ভেঙে চলে যাও ছেলে
গির্জার ভিতরে ঘরে সফেন কল্লোল
নির্বিকার সমুদ্রের পাড়ে ঢেউ ভাঙে
গির্জার চূড়ার ঘণ্টা সময় জানায়।

দুইদিকে চাও তুমি ছেলে
রেশমের সুতো ক’টি কুলুঙ্গি দেয়ালে
ছায়াগুলি ঘিরে বেঁধে রাখি…

এটুকু চেয়েছি বেশি… কুলুঙ্গির পথ
সামান্য প্রহর…

 

ছয়

বলো তুমি চলে যেতে, যাবো,
দ্রাক্ষার বাগান আছে, নগ্ন কাঁটাঝোপ
দুপায়ে বেড়ির মতো নিগড় বাঁধন
খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে হাঁটি দেখ গুপ্ত বনবাসে, আর
বর্তুল উপলখণ্ড, নিম্নমুখী কচ্ছপের পিঠে
দু’আঙুল ব্রহ্মাণ্ডের স্থিতি, শক্তি লয়

হে অর্চি আরক্ত খেলা, তীব্র বনবাসে
সুনীল মন্থর গাভী, সঙ্গী হও তবে,
উড়াও উড়াও সেই ব্রহ্মাণ্ডের ধুলা

 

সাত

এ’ ঘটে দোলায় আসি দোদুলের দোল
এ যে পূর্ণঘট তাঁর, গর্ভে আছে সোমরস, সুধা
অর্ধেক মেদিনী পরে গড়াগড়ি যায়
সর্বাঙ্গে অলস বিষ, ধীর চলাচল
কিছুদূর তৃণভূমি এখনো আকীর্ণ আছে, প্রেমে
সর্বাঙ্গের খুলে গেছে পাশ।
এসো হে আপন সখী, প্রিয়া
ঝুলির ভিতরে রাখা তাম্রপাত্র, চাল,
কাঁখে করে জল নিয়ে এসো
খড়িকাঠি আরো দাও পুরে…

কতক্ষণে রাঙা হবে, ও তীব্র অঙ্গার!

 

আট

দাঁড় বেয়ে কারা যায় যেন
অপসৃত বালুচরে তাহাদের ছায়া
নীলকান্ত, ঊর্ধমুখী নক্ষত্র দেখেন,
চেনাপথ, সেও তবে দস্যু হয়ে ওঠে।
বালির ভিতরে খুঁড়ি, গোপনে গচ্ছিত থাকে দধীচির হাড়

আবার জ্বলুক অগ্নি, নীলনদে কালরাত্রি কাটে…

সমিধ বরণ জানা

জন্ম ১৯ এপ্রিল ১৯৮৪; পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিমবঙ্গ, ভারত। উদ্ভিদবিদ্যায় স্নাতকোত্তর। পেশা : কলেজ-শিক্ষক।

প্রকাশিত বই :
কবিতা—
সমাচার তত্ত্ব [হিমযুগ, ২০০২)
ধূলিকাব্য [বইতরণী, ২০১৭]

ই-মেইল : samidhbaran@gmail.com

Latest posts by সমিধ বরণ জানা (see all)