হোম কবিতা শাহ মাইদুল ইসলামের কবিতা

শাহ মাইদুল ইসলামের কবিতা

শাহ মাইদুল ইসলামের কবিতা
496
0

নাচ


যখন তুমি আমার কাছে আসো
ভালো সংযোগ ক্ষেপে যায়
ঘটনাসুদ্ধ আলো ঠিকরে পড়ছে
হররছায়া অমলিন ঘাপটি মেরে আছে

পাঁচ তারকা প্রাসাদের গলিতে
পাঁচটি তারকা চুইয়ে চুইয়ে পড়ে
আহাদের ত্বক ছড়ে গেছে
কি করে ঘষটে দিই আমরা আমাদের

চোখে মুখে ভালো ভেলকি
বাতাসের এক ঝটকা এসে একটি জানলায়
মাংসল পচা জিহ্বারা
পাত পেড়ে বসে

যখন আমি তোমাকে করি
কিছুটা চুর্ণ ধ্বনিসমেত
আমরা প্রাণপাত করি সবকটি জানলায়
আগুনে পোশাক দ্বারা পরিশ্রুত

ঝাঁঝালো ফ্যাঁসফেঁসে ঘ্রাণ কানে বাজে
গাঢ় অনুস্বার ভ’রে বুদ্‌বুদ্‌
আহাদের নির্লোভ গান
আর আমরা পারছি যতটা, নাচি

 


রাত


তির্যক,
শিউলির ঘ্রাণ আঁকা—
রাত

যতদূর কার্তিক
ততদূর চোখ
ছড়ানো জোছনার মহিলা

…এর আলোক
অনুভব

ভালো-উদ্ভাসিত
চাঁদ:
একজন একচোখ
শিশুতোষ দেবতা

সদিচ্ছার জোড়া তালগাছ;
বালিকার পনিটেল
রহস্যপূর্ণ ভেজা-আলোয় অত্যল্প দুলছে

সুউচ্চ এমনি চাঁদ
ভালো,
উঁচু উঁচু গাছগাছালিদের
নরম রাত

অনেক নকশাআঁকা
ভালো রহস্যের
ছায়ায়, এখানেই আমাদের—
জন্ম হলো

 


ভালো বাঘ


যে মেয়েটি আত্মহত্যা করল
সে মূলত থামিয়ে দিল বয়স
একটা অত্যুজ্জ্বল মুখাবয়ব
ভালো সূর্যের তেজে সমানে জ্বলতে লাগল

১.
তার ঐশ্বরিক শারীরিকপনা দেখে দেখে
আমার পাগল পাগল লাগে
উবু হয়ে বসে সে কান্না-বান্না করে
সে ভালো বাঘ ছিঁড়ে-খুড়ে হরিণ খাওয়ায়

দু-তিন হাঁস দূরে আমি আড়গোছে দাঁড়িয়ে আছি
দুই পাহাড়ের নির্জনতার ভেতর
দেখি সে যে কাণ্ড করে:
অবাক দুই পাহাড়ের নির্জনতার ভেতর

২.
মেয়েটি ঘোর শক্তিতে আছে
মনঃসংযোগে তার বেঁকে যাচ্ছে ধাতুর কীলক
দু-তিন হাঁস দূরে আমি আড়গোছে দাঁড়িয়ে আছি
আল্লাহ আমার ভীতিকর এক
এতিম এতিম লাগছে, মনেতনে

৩.
মনসম্ভব মেয়েটি জোর আত্মহত্যা করছে
হররছিপি ঠুসে এঁটে দিচ্ছে
ভয়ানক তাতে আটকে গেলে বয়স
ও বাড়িতে, তার কণ্ঠ ছাপিয়ে
কিছুই ঘটছে না
ঘটবার জো নেই

 


আমরা দুজনে মিলে


আমরা দুজনে মিলে
আমাদের
মনসম্ভব রোদ

ভালো অজুহাত তুমি টেনে জড়ো করো
তোমার কালো-জামা, লাল-পাজামা
পাজামার গিঁট খুলে যেতে পারে এমন অমূলক
ভয় হয় আমার

ফিক করে হেসে ফেলো
পথশিশুদের জন্য আমাদের উপচে পড়া
উদ্বায়ী দুপুরের
হলুদ বন

এইখানে কাকসমগ্র—
অনেকটা কাক দারুণ খুশিতে আছে
আর দুটি মনের পথশিশু
এখন যতটা সন্ধ্যা,
ততটা কাক
অমন বাস্তব কাকগুলো গেল কই
শিশুদের আমরা জানি
কোথাও তারা হারাচ্ছে না

রোদগ্রস্তের ভেতরকার
কিড়মিড় আমাদের মনে—আমরা টইটম্বুর
চলচ্ছবি, যথেচ্ছ মৎসবিকেলের দিকে—
ঝোঁক

মান্দারিন ভাষায় রহস্যগুলো ডালপালা
সকল ভাষায় সুস্বাদ মুগডাল রান্না হয়
লাল-পাজামা পরিহিত যে কেউ জন্মদ্বার ছড়িয়ে রান্নাশহরে বসে—
সেই তোমার অবিকল

আজকের প্রসঙ্গ খামারে
একগাধা
সরীসৃপ খড়
বুয়েনোস আইরেসের দিকে
সকল ভাষার পিতৃভাষায় যেখানে অন্ধ বোর্হেসের ঝোঁক
থির ভাষা হই? রোদগ্রস্তের ভেতরকার
কিড়মিড় আমাদের মন;
এর সিন্ধু উপত্যকা—
এর মহেঞ্জোদারো

ডাকাবুকোদের দরাজ হাসির ভেতর
সক্রোধে খুলছে নগর কপাট

কোনো এক সিন্ধুরানি তুমিও অবিরাম স্বাস্থ্যকর
অনেক ব্যতিব্যস্ত জল
আর আমাদের
মনসম্ভব রবিশস্য

 


আমার কবিতাযাপন


আমার ওজনে হালকা শরীরের
থেকে ভারি, কবিতা
বয়স ত্রিশের তুলনায় অনেকখানি
নুয়ে গেছি আমি

আমার মুখের দিকে তাকিয়ে
মা আরো বৃদ্ধ হোন
এখানে কিছু চমকায় না
এখানে নেই কোনো তরবারি

কিছু না-বুঝার
দিন জাগার ক্লান্তি আর
রাতে একজন আততায়ী
চুষে রক্তজল

সকালের আলোয় আমার মা
কবিতার রুটি পরিবেশন করেন
হৃৎপিণ্ডের কষানো মাংস দিয়ে
চোখ বন্ধ করে খাই

হাঁটছি তপ্ত আফ্রিকার বুকে
বন্দুকের চোরাকারবারি র‌্যাঁবোর সঙ্গে
একফাঁকে দেখা হলে
কেউ কারও কুশল জিজ্ঞাসা করছি না

শাহ মাইদুল ইসলাম

জন্ম ২০ জুন ১৯৮৬।

প্রকাশিত বই :
ঘোড়া ও প্রাচীর বিষয়ক [কবিতা; তিউড়ি প্রকাশন, ২০১৬]

ই-মেইল : shahmydulislam@gmail.com

Latest posts by শাহ মাইদুল ইসলাম (see all)