হোম কবিতা যূপকাষ্ঠের অক্ষরমালা

যূপকাষ্ঠের অক্ষরমালা

যূপকাষ্ঠের অক্ষরমালা
406
0

সাইলেন্স

কোনো জিজ্ঞাসা নেই, অজ্ঞাত সময়ে
মৃত্যুতাড়িত এইসব অন্ধ-ঘড়ি
রাতের হৃৎপিণ্ড হয়ে বাজে চিরকাল
হাওয়ার গভীরে তখন ঘুমন্ত ডাহুকের গান,
আমি ত্রস্ত বেড়ালের পায়ে পেরিয়ে আসি কয়েকটি আয়না,
নির্জন ছায়াদের শব
তোমাকে দেখি, লতাগুল্মে জড়ানো দেহ,
অসংখ্য দরোজার পর তবু পাওয়া গেল পথ,
গমনযোগ্য ঠিকানার দিকে বয়ে যায়,
অথচ যেকোনো পথ, একটি দুর্বোধ্য সোপান যেন,
ধাপে ধাপে নেমে গেছে অতল গহিনে।

 


ইউরিডাইস

কখনো পাতার হরণ বাজে
অলস ঘুমের ঘড়িগুলো জাগাবে বলে,
মৃদুমন্থর সময়, কেবল এইসব মৃন্ময় পাহাড়েই
গড়াগড়ি খায় বুনোফুল, লতায় পাতায়,
তবু এইসব বিবশ দুপুরের দিনে কারা হাঁকায়
অবসন্ন রথের ঘোড়াগুলি? উজ্জল রোদ ঝিলকায়
উন্মাদ চাবুকের হাসি,
পারাপারহীন তবু কেউ কেউ পড়ে রয়
একান্ত নিজেরই পাশে।
হেঁয়ালির ভেতর, কারো কারো ঘুম
পাথরের সমান বয়সী,
ইউরিডাইস! ইউরিডাইস! ইউরিডাইস!
তোমাকে জাগাবে ফের অশ্রুত কাননের গান, পতিত পবন।
তোমাকে জাগাবে ফের

এপ্রিল-রোদ, আফিম আর মদিরার মওসুমে।

 


কালোজাদু

তবু পাঠ করো ঘনিষ্ঠ স্বরে
যূপকাষ্ঠের অক্ষরমালা, নামজপ,
মন্দ্র সুরের ধ্যানেই পাবে তাকে,
দেখো, এক দুর্বোধ্য কালোজাদুর ভেতর
বুঁদ হয়ে আছে সমস্ত তুঁতবন।
দ্যাখো, এক তীব্র নিনাদের ভেতর
হারিয়ে যাচ্ছে আমাদের মন।
আর যে আসে, যে যায়
চিরায়ত গ্রহের নিয়মে,
তাকে তবু মুছে দিতে চাই
কাঠের ইরেজারে ঘষে।

 


ঝিনুক কুড়ানোর গান

অনেক বাগানের পর তোমাদের মায়া-বাড়ি,
ঘুমঘোরে, বিলীন ছায়ার নিচে
একফোঁটা আলোর মতন,
ডাহুকের সুর ছড়ানো উঠোন তোমাদের
ডুবে ডুবে যায় নরোম পায়ের ঘুঙুরে
অতিক্রান্ত ঋতুর ঘ্রাণে জাদুর বারান্দা
উড়ে যায় উন্মূল ফুল—পাহাড়ের দিকে
শুনেছি, নিুঝুম সেই ঝিনুকের বন,
লবঙ্গ ফুলের দিনে, ঝাঁকে ঝাঁকে আলবাট্রস
উড়ে, ডানায় ক্লান্ত ঘুমের ভার বয়ে
উপকূলে থামে প্রপেলার ভাঙা জাহাজ,
একা একা দিনমান, ঢেউ ভাঙে ঢেউয়ের গায়ে
নোনা কাঠের ডেকে জ্বলে মীনোৎসবের বাতি,
শুনেছি, ওই অনির্ণীত দ্রাঘিমার তীরে
তোমাদের মায়া-বাড়ি, চিরকাল ঘুমঘোরে,
অসীম উপকূলে, হারানো জাহাজের ভেঁপু
যেন চিরকাল বাজে, নিঝুম ঝিনুকের বনে!

 


নভেম্বর

এই অসংলগ্ন হাসিবোধ কখনো দুরারোগ্য ব্যাধি বলে মনে হয়
আমার মতো করে আর কেউ নেই পৃথিবীর এই একমাত্র নিঃসঙ্গতা,
বিব্রত পা যুগল যেন ভেঙে পড়ে
অন্য কোনো বেদনার ভারে নভেম্বরের নৈঃশব্দ্য
বুননরত হাতগুলো কাঁপছে মায়ের
নির্বাপিত সূর্যের নিচে বসে ভাবি
এই রক্তাভ অস্তাচলের ওপারে
আছে কি আরও কোনো উন্মুক্ত দেয়াল?

হুজাইফা মাহমুদ

জন্ম ৭ ডিসেম্বর, ১৯৯৩। হবিগঞ্জ।

কবি। মাদ্রাসায় অধ্যায়নরত।

ই-মেইল : hujaifa.mahmud@gmail.com