হোম কবিতা পাণ্ডুলিপি থেকে : শূন্যতার সার্কেল

পাণ্ডুলিপি থেকে : শূন্যতার সার্কেল

পাণ্ডুলিপি থেকে : শূন্যতার সার্কেল
653
0

তিনটি সুতীক্ষ্ণ আইসোবার তির…


একটি নিঝুম ~ এলিমেন্টস থেকে
প্রতি রাতেই ~ পঞ্চম স্বীকার্য ডানা মেলে

নীল লিবিডো বুদ্‌বুদ ~ বের হয়ে আসে ~ রাত্রির গহ্বর থেকে

স্ট্রিং’এ
অগ্নিনৃত্য
কামশাস্ত্রে ~ উইপোকার চোরারাস্তা

তিনটি সুতীক্ষ্ণ আইসোবার তির ~ আমাকেই ভালোবাসে

স্বপ্নের চোখে ~ আমি বসিয়ে দিয়েছি
লাল সমুদ্র
কপালে
নীল আকাশ

দশটি মসৃণ নখর ~ জ্যোৎস্নার মতো জ্বলজ্বল করে
তীব্র
হীম
আঁচড়
কেটে
যায়

খনিজ বেদনা ~ কী কারণে
জেগে
উঠতে
চায়


সোনালীহলুদ → NaCl


আয়নিক বন্ধন থেকে ~ একটি ইলেকট্রন ~ হ্যাক হয়ে গেলে
এক জোড়া পাখি ~ একা হয়ে যায়
একটি
পাখি
ধীরে
ধীরে
অস্তিত্ব
হারায়
ক্রমাগত স্বপ্নের বায়ুমণ্ডল ~ নুনহীন হয়ে পড়ে

প্রেমদাসকে
লবণ
পরীক্ষায়
কত
মার্ক
দেওয়া যায়

অন্তর্মুখী
ভাবনায়
ডুবতে
ডুবতে
আমার হট্ কেক ~ নুনশূন্য হয়ে
ওড়ে
যাচ্ছে


বোধি বৃক্ষ….


অস্তিত্ব
কুণ্ডুলী পাকিয়ে আছে প্রখর শূন্যতায়
বোধিবৃক্ষ
জটপাকিয়ে আছে ~ মস্তিষ্কের ভাঁজে ভাঁজে
অসাড় পৃথিবী ~ লবণ দ্বীপের ফসিল হয়ে আছে…

আমাদের
হাড় হাড্ডির রেণুতে ~ দাঁড়িয়ে আছে এ কোন্ ইতিহাস

অনেক
গহিন
গভীরে
ডুব দিয়ে দেখি ~ নেপথলিন চাঁদ ~ তুষার জ্যোৎস্নায়
পাল তুলেছে ~ উত্তুঙ্গ উন্মাদনায়
ছেঁড়া স্বপ্ন গিঁট দিতে দিতে ~ এক দল ঢেউ দোলা দিয়ে যায়

আকাশ সমান জ্যোৎস্নায় ভেসে ভেসে ~ মৃত্যু সমান শান্তির ~ নিজ্‌ঝুম নিশ্বাস

নির্জর রশ্মি
নির্জন শূন্যতায়
ছড়িয়ে যাচ্ছে~ক্রমাগত ছড়িয়ে যাচ্ছে

মৃদু উন্মাদনায়
দেহ বেয়ে বেয়ে ~ একটি সাপ
ক্রমাগত
ঊর্ধ্বমুখী

ঈষৎ বেঁকে ফণা তুলে আছে ~ সপ্তর্ষি


হরিৎ বর্ণের কাঠপেন্সিল…


একটি হরিৎ বর্ণের কাঠপেন্সিল
ইন্দ্রিয় ভ্রমণে ~ পৌঁছে গেল ~ বন্য জ্যোৎস্নার তেপান্তরে

ফসিল বাস্তবতায় ~ দু’টি পেঁচার
গম্ভীর কথোপকথন …..   ….. ….. ….. …..

পালকের আসর থেকে
ঝরে
পড়া
একটি
পালকে
মিশে ছিল ~ ইতিহাস পারফিউম

তখনও
ফলের রসায়ন প্রবাহিত হয় নি ~ পেন্সিল বৃক্ষে
বসন্ত  ছিল ~ মাইল খানেক দূরে

ইলেকট্রিক করাতের গর্জনে ~ ছিটকে পড়ল ~ যে নীড়টি
তার
মাঝে
লুকিয়ে
ছিল
একজোড়া
আকাশ
আকাশ দু’টি ভেঙ্গে পড়ল ~ উত্তর ও দক্ষিণ গোলার্ধে
বিমর্ষ
গোধূলি নিয়ে

একঝাঁক জংলি পিঁপড়াকে
বাতাস
এসে
দিয়ে গেল
এইসব
খবর

খনি ছিঁড়ে যখন কার্বন রেণু  সরল হয়ে ঢুকে গেল ~ পেন্সিলের দেহে
তখনই ~ বোধি প্রাপ্ত গৌতম সম হয়ে উঠল ~ কাঠপেন্সিল
সঙ্গী হলো ~ সার্পনার ও ইরেজার

আর তখন থেকেই
তাদের সম্পর্কের মাঝে ~ ঝুলে আছে

একটি

বিষমবাহু

ত্রিভুজ

সময় ঋণাত্মক হতে হতে ~ আমিও কি
ঢুকে পড়েছি সবুজ আঁধারে


আত্মঘাতী ত্রিভুজ…


একটি ত্রিভুজের তিনটি শীর্ষ বিন্দুতে
ধর্ম ~ বিজ্ঞান
       
আমিত্বকে ~ বসিয়ে দিলে
ত্রিভুজটি আর ত্রিভুজ থাকে না ~ ভেঙ্গে চুরমার হয়ে যায়
রেখাগুলো মর্মঘাতী হয়ে ওঠে ~ মহাবিশ্বে ক্রমাগত ছড়িয়ে পড়ে
এক জোড়া নীল পা~ভীমরুলের চাকে বসে ~ ভাবনার সমুদ্রে ডুবে যায়
ইন্দ্রিয়ের মাঝে ~ জন্ম নেয় ~ এক বৃহৎ ~ কৃষ্ণ চোখ


শূন্যতার~সার্কেল…


জলে স্থলে ~ তন্ত্রে তন্ত্রে ~ পরমাণুর অভ্যন্তর ~ জগতে
ব  দ্বীপ ভাসিয়ে
আকাশগঙ্গার জোয়ার ভাটা পৌঁছে দিচ্ছে ~ এই শূন্যতা ~ শূন্য ~ শূন্যে

এক একটি ~ নাক্ষত্রিক যাত্রা ~ এইখান থেকে ~ দূর নক্ষত্রের গ্রামে
কামে ~ অকামে ~ তন্দ্রায়~জাগরণে
স্বপ্নের আস্তরণ  ভেঙেচুরে ~ এক একটি উষ্ণ ~ নাতিশীতোষ্ণ দীর্ঘশ্বাস
এক একটি দাগ
পবিত্র
প্রেম ভস্ম
এক একটি কক্ষপথ জানে ~ এই চক্র ~ শূন্য ~ শূন্যে

গ্রহে গ্রহে ~ উপগ্রহে
নক্ষত্রের গ্রাম ছাড়িয়ে ~ দূরে আরো এক নক্ষত্রের গ্রামে
অনন্ত
আদি
অন্তে


{ ( ভালোবাসা ) }÷{ ( ঘৃণা ) } = ধ্রুবক


আমাদের সম্পর্ক ভগ্নাংশের উপরের সংখ্যা ~ যদি ~ “ভালোবাসা” হয়
তাহলে নিচের সংখ্যার নাম ~ “ঘৃণা”
যা আমাদেরকে→ অতি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র করে দিচ্ছে

অবশেষ আকাশগঙ্গায় ~ যে ধ্রুবক জ্বলে পুড়ে যাচ্ছে
তার নাম কী…
সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের পথ ধরে ~ হেঁটে যায় ~ এক বিমর্ষ জোকার

বাদল ধারা

জন্ম ১৮ মে, ১৯৮৫।

শিক্ষা মাধ্যম : বিজ্ঞান ও সাহিত্য, ফটোগ্রাফি।

প্রকাশিতব্য বই :
‘শূন্যতার সার্কেল’ [একুশে বইমেলা ২০১৭, প্রকাশনী জেব্রাক্রসিং।]

ই-মেইল : poeticdhara@gmail.com