হোম কবিতা একগুচ্ছ শারদ কবিতা

একগুচ্ছ শারদ কবিতা

একগুচ্ছ শারদ কবিতা
136
0

এই মেঘান্ত ঋতুতে

অর্জনের ঋতু বর্ষা।
শরৎ, সর্জনের।
এবং বিসর্জনের।

বিসর্জনে বিসর্জনে মেঘ আজ বৈধব্যধবল।
সৃজনে-রোমান্সে-কৃত্যে নিচে ফুল্ল ভূমণ্ডল।

 

শরৎ, শারদীয়

কাশফুলের আভারূপে বিচ্ছুরিত ওই
ফুরফুরে ঋতুরেণু আজ
আকাশে বাতাসে নদী ও পাহাড়ে শাদায় সবুজে…

এই সেই মহাযোগ-মুহূর্ত, যখন
বহু-বহু বিন্দুর আত্মাহুতির মধ্য দিয়ে
সফল, সম্ভব হয়ে ওঠে প্রকৃতির প্রজনন।
উন্মাতাল ঝড়ের মন্থন
বর্ষার বেতাল আলোড়ন
দুর্যোগ, দুর্ঘট—নিভুনিভু হয়ে এলে সব,
শমভাবে এসে থিতু হয় তার যাবতীয় আয়োজন।

এমনই প্রশান্ত এক বোধনঋতুতে
এরকমই এক মহাযোগে
জলপথে মা এসে নামবেন ধীরে উদয়দিগন্তে
দিদিদের সঙ্গে নিয়ে।
অদৃশ্য বীণার সূক্ষ্ম সহজ সঙ্গতে
মা এসেই কণ্ঠে ফোটাবেন গান—প্রেম ও প্রকৃতি পর্যায়ের।

 

প্রতিমা

বৃষ্টি খুব কম-কম লাগছে এবার।
প্রতিমার হাত মুখ অবয়ব সবই তো গড়া হলো নিটোল, নিখুঁত
কিন্তু কিছুতেই করা তো যাচ্ছে না রূপারোপ, রূপের সঞ্চার।

যা কিছু দেখেছ কিংবা শুনেছ যা, একদম ভুলে যাও সব—
কিছুই ঘটে নি যেন দ্যাখো নি কিছুই।

মেঘের আড়ালে ইন্দ্রজিৎ, দ্যাখো দৃশ্যের আড়ালে জন্ম হচ্ছে ঘটনার।
মৎস্যধর্মের কাছে পরাজিত হচ্ছে আজ শৈবাল-স্বভাব।

প্রতিমার গভীরতর প্রদেশ থেকে উঠে আসে রূপ, রূপের প্রতিম।

Masud Khan

মাসুদ খান

কবি, লেখক, অনুবাদক। জন্ম ২৯ মে ১৯৫৯, জয়পুরহাট জেলার ক্ষেতলালে। পৈতৃক নিবাস সিরাজগঞ্জ। প্রকৌশলবিদ্যায় স্নাতক, ব্যবসায় প্রশাসনে স্নাতকোত্তর। তড়িৎ ও ইলেকট্রন প্রকৌশলী।

প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয় বুয়েটের হল ম্যাগাজিনে, ১৯৭৯-তে। জাতীয় পর্যায়ে লেখা প্রকাশিত হতে শুরু করে মধ্য-আশি থেকে, বাংলাদেশের বিভিন্ন লিটল ম্যাগাজিন ও সাহিত্যপত্রিকায়। পরবর্তীকালে বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিকসমূহে এবং বাংলাদেশ ও ভারতের বিভিন্ন সাহিত্য-পত্রিকায় ও কবিতা-সংকলনে।

উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ :
পাখিতীর্থদিনে (১৯৯৩)
নদীকূলে করি বাস (২০০১)
সরাইখানা ও হারানো মানুষ (২০০৬)
আঁধারতমা আলোকরূপে তোমায় আমি জানি (২০১১)
এই ধীর কমলাপ্রবণ সন্ধ্যায় (২০১৪)
দেহ-অতিরিক্ত জ্বর (২০১৫)

ই-মেইল : masud_khan@yahoo.com
Masud Khan